Skip to main content
ARBNDEENIDTRUR
bismillah
إِذَا
যখন
جَآءَكَ
তোমার কাছে আসে
ٱلْمُنَٰفِقُونَ
মুনাফিকরা
قَالُوا۟
তারা বলে
نَشْهَدُ
"আমরা সাক্ষ্য দিচ্ছি
إِنَّكَ
আপনি নিশ্চয়
لَرَسُولُ
অবশ্যই রাসূল
ٱللَّهِۗ
আল্লাহর"
وَٱللَّهُ
এবং আল্লাহ
يَعْلَمُ
জানেন
إِنَّكَ
তুমি নিশ্চয়
لَرَسُولُهُۥ
অবশ্যই তাঁর রাসূল
وَٱللَّهُ
এবং আল্লাহ
يَشْهَدُ
সাক্ষ্য দিচ্ছেন
إِنَّ
নিশ্চয়
ٱلْمُنَٰفِقِينَ
মুনাফিকরা
لَكَٰذِبُونَ
অবশ্যই মিথ্যাবাদী

মুনাফিকরা যখন তোমার কাছে আসে তখন তারা বলে- ‘আমরা সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আপনি অবশ্যই আল্লাহর রসূল।’ আল্লাহ জানেন, অবশ্যই তুমি তাঁর রসূল আর আল্লাহ সাক্ষ্য দিচ্ছেন যে, মুনাফিকরা অবশ্যই মিথ্যেবাদী।

ব্যাখ্যা
ٱتَّخَذُوٓا۟
তারা গ্রহণ করেছে
أَيْمَٰنَهُمْ
তাদের শপথগুলোকে
جُنَّةً
ঢাল (স্বরূপ)
فَصَدُّوا۟
অতঃপর তারা বাধা সৃষ্টি করে
عَن
থেকে
سَبِيلِ
পথ
ٱللَّهِۚ
আল্লাহর
إِنَّهُمْ
তারা নিশ্চয়
سَآءَ
কত মন্দ
مَا
যা
كَانُوا۟
(ছিল)
يَعْمَلُونَ
তারা করছে

তারা তাদের শপথগুলোকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে আর এ উপায়ে তারা মানুষকে আল্লাহর পথ থেকে নিবৃত্ত করে। তারা যা করে তা কতই না মন্দ!

ব্যাখ্যা
ذَٰلِكَ
এটা
بِأَنَّهُمْ
এ কারণে যে তারা
ءَامَنُوا۟
ঈমান এনেছে
ثُمَّ
আবার তোমাদের মধ্যে
كَفَرُوا۟
কুফুরি করেছে
فَطُبِعَ
অতঃপর মোহর করা হয়েছে
عَلَىٰ
উপর
قُلُوبِهِمْ
তাদের অন্তরসমূহের
فَهُمْ
অতঃপর তারা
لَا
না
يَفْقَهُونَ
তারা বুঝে

তার কারণ এই যে, তারা ঈমান আনে, অতঃপর কুফুরী করে। এজন্য তাদের অন্তরে মোহর লাগিয়ে দেয়া হয়েছে। যার ফলে তারা কিছুই বুঝে না

ব্যাখ্যা
وَإِذَا
এবং যখন
رَأَيْتَهُمْ
তাদের তুমি দেখ
تُعْجِبُكَ
তোমার প্রীতিকর মনে হয়
أَجْسَامُهُمْۖ
তাদের দেহগুলো
وَإِن
এবং যদি
يَقُولُوا۟
তারা কথা বলে
تَسْمَعْ
তুমি শুনবে
لِقَوْلِهِمْۖ
তাদের কথাকে
كَأَنَّهُمْ
তারা যেন (আসলে)
خُشُبٌ
কাষ্ঠখণ্ডসমূহ
مُّسَنَّدَةٌۖ
ঠেকান দেয়া
يَحْسَبُونَ
তারা মনে করে
كُلَّ
প্রত্যেক
صَيْحَةٍ
উঁচু আওয়াজ
عَلَيْهِمْۚ
তাদের বিরুদ্ধে
هُمُ
তারাই
ٱلْعَدُوُّ
শত্রু
فَٱحْذَرْهُمْۚ
অতএব সতর্ক হও তাদের (থেকে)
قَٰتَلَهُمُ
তাদের উপর মার
ٱللَّهُۖ
আল্লাহর
أَنَّىٰ
কোথায়
يُؤْفَكُونَ
তাদের ফিরিয়ে নেয়া হচ্ছে

তুমি যখন তাদের দিকে তাকাও তখন তাদের শারীরিক গঠন তোমাকে চমৎকৃত করে। আর যখন তারা কথা বলে তখন তুমি তাদের কথা আগ্রহ ভরে শুন, অথচ তারা দেয়ালে ঠেস দেয়া কাঠের মত (দেখন- সুরত, কিন্ত কার্যক্ষেত্রে কিছুই না)। কোন শোরগোল হলেই তারা সেটাকে নিজেদের বিরুদ্ধে মনে করে (কারণ তাদের অপরাধী মন সব সময়ে শঙ্কিত থাকে- এই বুঝি তাদের কুকীর্তি ফাঁস হয়ে গেল)। এরাই শত্রু, কাজেই তাদের ব্যাপারে সতর্ক থাক। এদের উপর আছে আল্লাহর গযব, তাদেরকে কীভাবে (সত্য পথ থেকে) ফিরিয়ে নেয়া হচ্ছে!

ব্যাখ্যা
وَإِذَا
এবং যখন
قِيلَ
বলা হয়
لَهُمْ
তাদেরকে
تَعَالَوْا۟
"তোমরা আসো
يَسْتَغْفِرْ
ক্ষমা প্রার্থনা করবেন
لَكُمْ
তোমাদের জন্যে
رَسُولُ
রাসূূল"
ٱللَّهِ
আল্লাহর"
لَوَّوْا۟
তারা ফিরিয়ে নেয়
رُءُوسَهُمْ
তাদের মাথাগুলো
وَرَأَيْتَهُمْ
এবং তুমি তাদের দেখো
يَصُدُّونَ
বিরত থাকে (আসা থেকে)
وَهُم
এবং তারা
مُّسْتَكْبِرُونَ
অহংকারী

তাদেরকে যখন বলা হয়, ‘এসো, আল্লাহর রসূল তোমাদের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করবেন, তখন তারা মাথা নেড়ে অস্বীকৃতি জানায়, তখন তুমি দেখতে পাও তারা সদম্ভে তাদের মুখ ফিরিয়ে নেয়।

ব্যাখ্যা
سَوَآءٌ
সমান
عَلَيْهِمْ
তাদের জন্যে
أَسْتَغْفَرْتَ
তুমি ক্ষমা প্রার্থনা কর
لَهُمْ
তাদের জন্য
أَمْ
অথবা
لَمْ
প্রার্থনা নাই করো
تَسْتَغْفِرْ
তুমি ক্ষমা
لَهُمْ
তাদের জন্যে
لَن
কক্ষনো না
يَغْفِرَ
ক্ষমা করবেন
ٱللَّهُ
আল্লাহ
لَهُمْۚ
তাদেরকে
إِنَّ
নিশ্চয়
ٱللَّهَ
আল্লাহ
لَا
না
يَهْدِى
পথ দেখান
ٱلْقَوْمَ
লোকদের
ٱلْفَٰسِقِينَ
ফাসেক

তুমি তাদের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা কর আর না কর, উভয়ই তাদের জন্য সমান। আল্লাহ তাদেরকে কক্ষনো ক্ষমা করবেন না। আল্লাহ পাপাচারী জাতিকে কক্ষনো সঠিক পথে পরিচালিত করেন না।

ব্যাখ্যা
هُمُ
তারা (ঐ লোক)
ٱلَّذِينَ
যারা
يَقُولُونَ
বলে
لَا
"না
تُنفِقُوا۟
তোমরা খরচ করো
عَلَىٰ
(তাদের) জন্য
مَنْ
যারা (আছে)
عِندَ
কাছে
رَسُولِ
রাসূলের
ٱللَّهِ
আল্লাহর
حَتَّىٰ
যতক্ষণ না
يَنفَضُّوا۟ۗ
তারা ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়"
وَلِلَّهِ
অথচ আল্লাহরই
خَزَآئِنُ
ধনভাণ্ডারসমূহ
ٱلسَّمَٰوَٰتِ
আসমানসমূহের
وَٱلْأَرْضِ
ও যমীনের
وَلَٰكِنَّ
কিন্তু
ٱلْمُنَٰفِقِينَ
মুনাফিকরা
لَا
না
يَفْقَهُونَ
তারা বুঝে

তারা বলে- ‘রসূলের সঙ্গী সাথীদের জন্য অর্থ ব্যয় করো না, শেষে তারা এমনিতেই সরে পড়বে।’ আসমান ও যমীনের ধন ভান্ডার তো আল্লাহরই, কিন্তু মুনাফিকরা তা বুঝে না।

ব্যাখ্যা
يَقُولُونَ
তারা বলে
لَئِن
"অবশ্যই যদি
رَّجَعْنَآ
আমরা ফিরে যেতে পারি
إِلَى
দিকে
ٱلْمَدِينَةِ
মদীনার
لَيُخْرِجَنَّ
বহিস্কার করবেই
ٱلْأَعَزُّ
অধিক সম্মানিত
مِنْهَا
তা থেকে
ٱلْأَذَلَّۚ
হীনতরকে"
وَلِلَّهِ
অথচ আল্লাহরই জন্যে
ٱلْعِزَّةُ
সম্মান
وَلِرَسُولِهِۦ
ও তাঁর রাসূলের
وَلِلْمُؤْمِنِينَ
ও মু'মিনদের
وَلَٰكِنَّ
কিন্তু
ٱلْمُنَٰفِقِينَ
মুনাফিকরা
لَا
না
يَعْلَمُونَ
তারা জানে

তারা বলে- ‘আমরা যদি মাদীনায় প্রত্যাবর্তন করি, তাহলে সম্মানীরা অবশ্য অবশ্যই হীনদেরকে সেখানে থেকে বহিষ্কার করবে।’ কিন্তু সমস্ত মান মর্যাদা তো আল্লাহর, তাঁর রসূলের এবং মু’মিনদের; কিন্তু মুনাফিকরা তা জানে না।

ব্যাখ্যা
يَٰٓأَيُّهَا
ওহে
ٱلَّذِينَ
যারা
ءَامَنُوا۟
ঈমান এনেছো
لَا
না
تُلْهِكُمْ
তোমাদের (যেন) গাফিল করে
أَمْوَٰلُكُمْ
তোমাদের সম্পদগুলো
وَلَآ
ও না
أَوْلَٰدُكُمْ
তোমাদের সন্তানরা
عَن
থেকে
ذِكْرِ
স্মরণ
ٱللَّهِۚ
আল্লাহর
وَمَن
এবং যে
يَفْعَلْ
করবে
ذَٰلِكَ
এটা
فَأُو۟لَٰٓئِكَ
অতঃপর ঐসব লোক
هُمُ
তারাই
ٱلْخَٰسِرُونَ
ক্ষতিগ্রস্ত

হে মু’মিনগণ! তোমাদের ধন-সম্পদ আর তোমাদের সন্তানাদি তোমাদেরকে যেন আল্লাহর স্মরণ হতে গাফিল করে না দেয়। যারা এমন করবে তারাই ক্ষতিগ্রস্ত।

ব্যাখ্যা
وَأَنفِقُوا۟
এবং তোমরা খরচ করো
مِن
থেকে
مَّا
তা (যা)
رَزَقْنَٰكُم
তোমাদের আমরা রিজিক দিয়েছি
مِّن
থেকে
قَبْلِ
পূর্বে
أَن
যে
يَأْتِىَ
আসে
أَحَدَكُمُ
তোমাদের কারও
ٱلْمَوْتُ
মৃত্যু
فَيَقُولَ
অতঃপর সে বলবে
رَبِّ
"হে আমার রব
لَوْلَآ
কেন না
أَخَّرْتَنِىٓ
তুমি আমাকে অবকাশ দিলে
إِلَىٰٓ
পর্যন্ত
أَجَلٍ
কাল
قَرِيبٍ
কিছু
فَأَصَّدَّقَ
আমি তা হলে সদকা করতাম
وَأَكُن
এবং হতাম আমি
مِّنَ
অন্তর্ভুক্ত
ٱلصَّٰلِحِينَ
সৎকর্মশীলদের"

যে রিযক আমি তোমাদেরকে দিয়েছি তাত্থেকে (আল্লাহর পথে) ব্যয় কর তোমাদের কারো মৃত্যু আসার পূর্বে। নচেৎ (মৃত্যু এসে গেলে) সে বলবে, ‘হে আমার প্রতিপালক! তুমি আমাকে আরো কিছুকালের অবকাশ দিলে না কেন? তাহলে আমি সদাক্বাহ করতাম আর সৎকর্মশীলদের মধ্যে শামিল হয়ে যেতাম।’

ব্যাখ্যা
সম্পর্কে তথ্য :
মুনাফিকুন
القرآن الكريم:المنافقون
আধিপত্য একটি আয়াত (سجدة):-
সূরা নাম (latin):Al-Munafiqun
সূরা না:63
মোট আয়াত:11
মোট শব্দ:80
মোট অক্ষর:976
রুকু সংখ্যা:2
উদ্ঘাটন অবস্থান:মদিনা
উদ্ঘাটন আদেশ:104
শ্লোক থেকে শুরু:5188