Skip to main content
ARBNDEENIDTRUR
bismillah
قَدْ
নিশ্চয়ই
سَمِعَ
শুনেছেন
ٱللَّهُ
আল্লাহ্‌
قَوْلَ
কথা
ٱلَّتِى
(সেই নারীর) যে
تُجَٰدِلُكَ
তোমার সাথে তর্কবিতর্ক করছে
فِى
ব্যাপারে
زَوْجِهَا
তার স্বামীর
وَتَشْتَكِىٓ
এবং অভিযোগ করছে
إِلَى
কাছে
ٱللَّهِ
আল্লাহ্‌র
وَٱللَّهُ
এবং আল্লাহ্‌
يَسْمَعُ
শুনছেন
تَحَاوُرَكُمَآۚ
তোমাদের দুজনের কথাবার্তা
إِنَّ
নিশ্চয়ই
ٱللَّهَ
আল্লাহ্‌
سَمِيعٌۢ
সবকিছু শোনেন
بَصِيرٌ
সবকিছু দেখেন

আল্লাহ তার কথা শুনেছেন যে নারী (খাওলাহ বিনত সা‘লাবাহ) তার স্বামীর বিষয়ে তোমার সাথে বাদানুবাদ করছে আর আল্লাহর কাছে ফরিয়াদ জানাচ্ছে, আল্লাহ তোমাদের দু’জনের কথা শুনছেন, আল্লাহ সর্বশ্রোতা, সর্বদ্রষ্টা।

ব্যাখ্যা
ٱلَّذِينَ
যারা
يُظَٰهِرُونَ
যিহার করে
مِنكُم
তোমাদের মধ্য থেকে
مِّن
সাথে
نِّسَآئِهِم
তাদের স্ত্রীদের
مَّا
না
هُنَّ
তারা
أُمَّهَٰتِهِمْۖ
তাদের মা (হয়ে যায়)
إِنْ
নয় (অন্যরা)
أُمَّهَٰتُهُمْ
তাদের মা
إِلَّا
এছাড়া
ٱلَّٰٓـِٔى
যারা
وَلَدْنَهُمْۚ
তাদের জন্ম দিয়েছে
وَإِنَّهُمْ
এবং তারা নিশ্চয়ই
لَيَقُولُونَ
বলে অবশ্যই
مُنكَرًا
অসঙ্গত
مِّنَ
থেকে
ٱلْقَوْلِ
কথা
وَزُورًاۚ
ও মিথ্যা
وَإِنَّ
এবং নিশ্চয়ই
ٱللَّهَ
আল্লাহ্‌
لَعَفُوٌّ
অবশ্যই মার্জনাকারী
غَفُورٌ
ক্ষমাশীল

তোমাদের মধ্যে যারা তাদের স্ত্রীদের সাথে জিহার করে (অর্থাৎ স্ত্রীকে বলে যে, তুমি আমার জন্য আমার মায়ের পিঠের মত) তাদের স্ত্রীরা তাদের মা নয়। তাদের মা তো কেবল তারাই যারা তাদের জন্ম দিয়েছে। তারা অবশ্যই ঘৃণ্য ও মিথ্যে কথা বলে, নিশ্চয়ই আল্লাহ পাপ মোচনকারী, বড়ই ক্ষমাশীল।

ব্যাখ্যা
وَٱلَّذِينَ
এবং তারা যখন
يُظَٰهِرُونَ
যিহার করে
مِن
সাথে
نِّسَآئِهِمْ
তাদের স্ত্রীদের
ثُمَّ
এরপর
يَعُودُونَ
ফিরে যায়
لِمَا
(তা হতে) যা
قَالُوا۟
তারা বলেছিল
فَتَحْرِيرُ
মুক্ত করতে হবে
رَقَبَةٍ
একজন দাস
مِّن
থেকে
قَبْلِ
পূর্বে
أَن
যে
يَتَمَآسَّاۚ
পরস্পরকে স্পর্শ করার
ذَٰلِكُمْ
এসব
تُوعَظُونَ
তোমাদের উপদেশ দেয়া হচ্ছে
بِهِۦۚ
এদ্বারা
وَٱللَّهُ
এবং আল্লাহ্‌
بِمَا
ঐ বিষয়ে যা
تَعْمَلُونَ
তোমরা কাজ কর
خَبِيرٌ
খুব অবহিত

যারা নিজেদের স্ত্রীদের সাথে জিহার করে, অতঃপর তারা যে কথা বলেছে তা প্রত্যাহার করে নেয় তবে পরস্পরকে স্পর্শ করার পূর্বে তাদেরকে একটি দাস মুক্ত করতে হবে, এর দ্বারা তোমাদেরকে উপদেশ দেয়া হচ্ছে। তোমরা যা কর, আল্লাহ তার খবর রাখেন।

ব্যাখ্যা
فَمَن
যে অতঃপর
لَّمْ
না
يَجِدْ
পায় (কোন দাস)
فَصِيَامُ
তবে রোজা রাখবে
شَهْرَيْنِ
দু'মাস
مُتَتَابِعَيْنِ
একটানা
مِن
থেকে
قَبْلِ
পূর্বে
أَن
যে
يَتَمَآسَّاۖ
পরস্পরে স্পর্শ করার
فَمَن
যে অতঃপর
لَّمْ
না
يَسْتَطِعْ
সমর্থ হবে
فَإِطْعَامُ
তবে খানা খাওয়াবে
سِتِّينَ
ষাটজন
مِسْكِينًاۚ
নিঃস্বকে
ذَٰلِكَ
এটা (এজন্যে)
لِتُؤْمِنُوا۟
যেন তোমরা ঈমান আন
بِٱللَّهِ
আল্লাহ্‌র উপর
وَرَسُولِهِۦۚ
এবং তাঁর রাসূলের (উপর)
وَتِلْكَ
এবং এটা
حُدُودُ
নির্ধারিত সীমাসমূহ
ٱللَّهِۗ
আল্লাহ্‌র
وَلِلْكَٰفِرِينَ
এবং কাফিরদের জন্য (রয়েছে)
عَذَابٌ
শাস্তি
أَلِيمٌ
যন্ত্রণাদায়ক

কিন্তু যার (দাস সংগ্রহ করার) সামর্থ্য নেই, সে এক নাগাড়ে দু’মাস রোযা রাখবে পরস্পরকে স্পর্শ করার পূর্বে। আর যে তা করতে পারবে না, সে ষাট জন মিসকীনকে খাবার খাওয়াবে। এ নির্দেশ দেয়া হচ্ছে এ জন্য যাতে তোমরা আল্লাহ ও তাঁর রসূলের প্রতি ঈমান আনো। এগুলো আল্লাহর নির্ধারিত সীমা। (যারা এটা অস্বীকার করবে সেই) কাফিরদের জন্য আছে মর্মান্তিক শাস্তি।

ব্যাখ্যা
إِنَّ
নিশ্চয়ই
ٱلَّذِينَ
যারা
يُحَآدُّونَ
বিরোধিতা করে
ٱللَّهَ
আল্লাহ্‌র
وَرَسُولَهُۥ
তাঁর রাসুলের
كُبِتُوا۟
তাদের লাঞ্ছিত করা হবে
كَمَا
যেমন
كُبِتَ
লাঞ্ছিত করা হয়েছিল
ٱلَّذِينَ
(তাদেরকে) যারা
مِن
থেকে
قَبْلِهِمْۚ
তাদের পূর্বে (ছিল)
وَقَدْ
এবং নিশ্চয়ই
أَنزَلْنَآ
আমরা অবতীর্ণ করেছি
ءَايَٰتٍۭ
আয়াতসমূহ
بَيِّنَٰتٍۚ
সুস্পষ্ট
وَلِلْكَٰفِرِينَ
এবং কাফিরদের জন্যে রয়েছে
عَذَابٌ
শাস্তি
مُّهِينٌ
অপমানকর

যারা আল্লাহ ও তাঁর রসূলের বিরোধিতা করে তাদেরকে লাঞ্ছিত করা হবে যেমন লাঞ্ছিত করা হয়েছিল তাদের পূর্ববর্তীদেরকে। আমি সুস্পষ্ট আয়াত অবতীর্ণ করেছি আর (অস্বীকারকারী) কাফিরদের জন্য আছে অপমানজনক শাস্তি,

ব্যাখ্যা
يَوْمَ
যেদিন
يَبْعَثُهُمُ
তাদের উত্থিত করবেন
ٱللَّهُ
আল্লাহ্‌
جَمِيعًا
সকলকেই
فَيُنَبِّئُهُم
অতঃপর তাদের জানিয়ে দিবেন
بِمَا
যা
عَمِلُوٓا۟ۚ
তারা কাজ করেছে
أَحْصَىٰهُ
তা গুণে রেখেছেন
ٱللَّهُ
আল্লাহ্‌
وَنَسُوهُۚ
অথচ তা তারা ভুলে গেছে
وَٱللَّهُ
এবং আল্লাহ্‌
عَلَىٰ
উপর
كُلِّ
সব
شَىْءٍ
কিছুরই
شَهِيدٌ
সাক্ষী

সেদিন, যেদিন আল্লাহ তাদের সকলকে আবার জীবিত করে উঠাবেন এবং তাদের কৃতকর্মের সংবাদ তাদেরকে জানিয়ে দিবেন, আল্লাহ তা হিসেব করে রেখেছেন যদিও তারা (নিজেরা) ভুলে গেছে। আল্লাহ প্রতিটি বিষয়ের প্রত্যক্ষদর্শী।

ব্যাখ্যা
أَلَمْ
না কি
تَرَ
তুমি জানো
أَنَّ
যে
ٱللَّهَ
আল্লাহ্‌
يَعْلَمُ
জানেন
مَا
যা কিছু
فِى
মধ্যে আছে
ٱلسَّمَٰوَٰتِ
আকাশসমূহের
وَمَا
এবং যা কিছু
فِى
মধ্যে আছে
ٱلْأَرْضِۖ
পৃথিবীর
مَا
না
يَكُونُ
হতে পারে
مِن
কোনো
نَّجْوَىٰ
গোপন পরামর্শ
ثَلَٰثَةٍ
তিনজনের
إِلَّا
এছাড়া
هُوَ
তিনি (থাকেন)
رَابِعُهُمْ
তাদের চতুর্থজন
وَلَا
এবং না
خَمْسَةٍ
পাঁচজনের
إِلَّا
এছাড়া
هُوَ
তিনি (হবেন)
سَادِسُهُمْ
তাদের ষষ্ঠজন
وَلَآ
এবং না
أَدْنَىٰ
কম হোক
مِن
চেয়ে
ذَٰلِكَ
এর
وَلَآ
এবং না
أَكْثَرَ
বেশি (হোক)
إِلَّا
এছাড়া
هُوَ
তিনি
مَعَهُمْ
তাদের সাথে (আছেন)
أَيْنَ
যেখানেই
مَا
না
كَانُوا۟ۖ
তারা থাকুক
ثُمَّ
এরপর
يُنَبِّئُهُم
তাদের জানাবেন
بِمَا
ঐ বিষয়ে যা
عَمِلُوا۟
তারা কাজ করেছে
يَوْمَ
দিনে
ٱلْقِيَٰمَةِۚ
কিয়ামতের
إِنَّ
নিশ্চয়ই
ٱللَّهَ
আল্লাহ্‌
بِكُلِّ
সব সম্পর্কে
شَىْءٍ
কিছুর
عَلِيمٌ
খুব অবহিত

তুমি কি জান না যে, যা আকাশে আছে আর যা যমীনে আছে আল্লাহ সব জানেন। তিনজনের মধ্যে এমন কোন গোপন পরামর্শ হয় না যাতে চতুর্থজন আল্লাহ হন না, আর পাঁচজনেও হয় না, ষষ্ঠজন তিনি ছাড়া, এর কম সংখ্যকেও হয় না, আর বেশি সংখ্যকেও হয় না, তিনি তাদের সঙ্গে থাকা ব্যতীত, তারা যেখানেই থাকুক না কেন। অতঃপর ক্বিয়ামত দিবসে তিনি জানিয়ে দেবেন যা তারা ‘আমাল করেছিল। আল্লাহ সকল বিষয়ে পূর্ণভাবে অবগত।

ব্যাখ্যা
أَلَمْ
নি কি
تَرَ
তুমি দেখ
إِلَى
দিকে
ٱلَّذِينَ
(তাদেরকে) যাদের
نُهُوا۟
নিষেধ করা হয়েছিল
عَنِ
হতে
ٱلنَّجْوَىٰ
গোপন পরামর্শ
ثُمَّ
এরপর
يَعُودُونَ
তারা পুনরাবৃত্তি করে
لِمَا
ঐ বিষয়ে যা
نُهُوا۟
নিষেধ করা হয়েছিল
عَنْهُ
তা হতে
وَيَتَنَٰجَوْنَ
ও পরস্পর গোপন পরামর্শ করে
بِٱلْإِثْمِ
পাপের
وَٱلْعُدْوَٰنِ
ও বাড়াবাড়ির
وَمَعْصِيَتِ
এবং অবাধ্যতার (জন্যে)
ٱلرَّسُولِ
রাসূলের
وَإِذَا
এবং যখন
جَآءُوكَ
তারা তোমার কাছে আসে
حَيَّوْكَ
তোমাকে অভিবাদন করে
بِمَا
এমন ভাবে
لَمْ
নি
يُحَيِّكَ
তোমাকে অভিবাদন করে
بِهِ
যেভাবে
ٱللَّهُ
আল্লাহ্‌
وَيَقُولُونَ
এবং তারা বলে
فِىٓ
মধ্যে
أَنفُسِهِمْ
তাদের নিজেদের (মনের)
لَوْلَا
"না কেন
يُعَذِّبُنَا
আমাদেরকে শাস্তি দেন
ٱللَّهُ
আল্লাহ্‌
بِمَا
একারনে যা
نَقُولُۚ
বলি আমরা"
حَسْبُهُمْ
তাদের জন্যে যথেষ্ট
جَهَنَّمُ
জাহান্নাম
يَصْلَوْنَهَاۖ
তাতে তারা প্রবেশ করবে
فَبِئْسَ
অতি নিকৃষ্ট তা
ٱلْمَصِيرُ
আবাসস্থল (হিসেবে)

তুমি কি তাদেরকে দেখনি যাদেরকে গোপন পরামর্শ করতে নিষেধ করা হয়েছিল, অতঃপর তারা আবার তাই করল যা করতে তাদেরকে নিষেধ করা হয়েছিল, তারা গোপনে পরামর্শ করল পাপাচার, সীমালঙ্ঘন আর রসূলকে অমান্য করা নিয়ে। তারা যখন তোমার কাছে আসে তখন তারা তোমাকে এমনভাবে সম্ভাষণ করে যেমনভাবে আল্লাহ তোমাকে সম্ভাষণ করেননি। তারা মনে মনে বলে- ‘আমরা যা বলি তার জন্য আল্লাহ আমাদেরকে ‘আযাব দেন না কেন? জাহান্নামই তাদের জন্য যথেষ্ট, তাতে তারা জ্বলবে, কতই না নিকৃষ্ট সেই গন্তব্যস্থল!

ব্যাখ্যা
يَٰٓأَيُّهَا
হে
ٱلَّذِينَ
যারা
ءَامَنُوٓا۟
ঈমান এনেছ
إِذَا
যখন
تَنَٰجَيْتُمْ
তোমরা গোপনে পরামর্শ করো
فَلَا
না তবে
تَتَنَٰجَوْا۟
পরস্পরে গোপন পরামর্শ করো
بِٱلْإِثْمِ
পাপের বিষয়ে
وَٱلْعُدْوَٰنِ
ও বাড়াবাড়ির
وَمَعْصِيَتِ
এবং অবাধ্যতার (ক্ষেত্রে)
ٱلرَّسُولِ
রাসূলের
وَتَنَٰجَوْا۟
এবং তোমরা গোপনে পরামর্শ করো
بِٱلْبِرِّ
কল্যাণকর কাজ সম্পর্কে
وَٱلتَّقْوَىٰۖ
এবং তাকওয়ার (ক্ষেত্রে)
وَٱتَّقُوا۟
এবং তোমরা ভয় করো
ٱللَّهَ
আল্লাহকে
ٱلَّذِىٓ
যিনি (এমন সত্তা যে)
إِلَيْهِ
তাঁর দিকে
تُحْشَرُونَ
তোমাদের সমবেত করা হবে

হে মু’মিনগণ! তোমরা যখন গোপন পরামর্শ কর, তখন পাপাচার, সীমালঙ্ঘন আর রসূলকে অমান্য করার পরামর্শ কর না। তোমরা সৎকর্ম ও তাকওয়া অবলম্বনের ব্যাপারে পরামর্শ করো। আর তোমরা আল্লাহকে ভয় কর যাঁর কাছে তোমাদেরকে সমবেত করা হবে।

ব্যাখ্যা
إِنَّمَا
মূলত
ٱلنَّجْوَىٰ
গোপন পরামর্শ (করা হয়)
مِنَ
পক্ষ হতে
ٱلشَّيْطَٰنِ
শয়তানের
لِيَحْزُنَ
দুঃখ দেয়ার জন্যে
ٱلَّذِينَ
(তাদেরকে) যারা
ءَامَنُوا۟
ঈমান এনেছে
وَلَيْسَ
আর না (কেউ)
بِضَآرِّهِمْ
তাদেরকে ক্ষতি করতে পারবে
شَيْـًٔا
কিছুই
إِلَّا
ব্যতীত
بِإِذْنِ
অনুমতি
ٱللَّهِۚ
আল্লাহ্‌র
وَعَلَى
এবং উপর
ٱللَّهِ
আল্লাহ্‌রই
فَلْيَتَوَكَّلِ
ভরসা করা কর্তব্য
ٱلْمُؤْمِنُونَ
মু'মিনদের

গোপন পরামর্শ হল মু’মিনদেরকে দুঃখ দেয়ার জন্য শয়ত্বান প্ররোচিত কাজ। তবে আল্লাহর অনুমতি ছাড়া তা তাদের কোন ক্ষতি করতে পারে না। মু’মিনদের কর্তব্য হল একমাত্র আল্লাহরই উপর ভরসা করা।

ব্যাখ্যা
সম্পর্কে তথ্য :
আল মুজাদালাহ
القرآن الكريم:المجادلة
আধিপত্য একটি আয়াত (سجدة):-
সূরা নাম (latin):Al-Mujadilah
সূরা না:58
মোট আয়াত:22
মোট শব্দ:473
মোট অক্ষর:1792
রুকু সংখ্যা:3
উদ্ঘাটন অবস্থান:মদিনা
উদ্ঘাটন আদেশ:105
শ্লোক থেকে শুরু:5104