Skip to main content
ARBNDEENIDTRUR
bismillah
يَٰٓأَيُّهَا
হে
ٱلنَّبِىُّ
নবী
إِذَا
যখন
طَلَّقْتُمُ
তোমরা তালাক দাও
ٱلنِّسَآءَ
স্ত্রীদের
فَطَلِّقُوهُنَّ
অতঃপর তাদের তোমরা তালাক দাও
لِعِدَّتِهِنَّ
তাদের ইদ্দতের জন্য
وَأَحْصُوا۟
ও তোমরা গণনা কর
ٱلْعِدَّةَۖ
ইদ্দত
وَٱتَّقُوا۟
এবং তোমরা ভয় কর
ٱللَّهَ
আল্লাহকে
رَبَّكُمْۖ
তোমাদের রব
لَا
না
تُخْرِجُوهُنَّ
তাদের তোমরা বের করো
مِنۢ
থেকে
بُيُوتِهِنَّ
তাদের ঘরগুলো
وَلَا
এবং না
يَخْرُجْنَ
তারা বের হবে
إِلَّآ
তবে
أَن
যদি
يَأْتِينَ
তারা লিপ্ত হয়
بِفَٰحِشَةٍ
অশ্লীলতায়
مُّبَيِّنَةٍۚ
সুস্পষ্ট (অন্য কথা)
وَتِلْكَ
ও এসব
حُدُودُ
সীমাসমূহ
ٱللَّهِۚ
আল্লাহর
وَمَن
এবং যে
يَتَعَدَّ
লংঘন করে
حُدُودَ
সীমানাসমূহ
ٱللَّهِ
আল্লাহর
فَقَدْ
নিশ্চয় অতঃপর
ظَلَمَ
যুলম করে
نَفْسَهُۥۚ
তার নিজের (উপর)
لَا
না
تَدْرِى
তুমি জান
لَعَلَّ
সম্ভবতঃ
ٱللَّهَ
আল্লাহ
يُحْدِثُ
সৃষ্টি করবেন
بَعْدَ
পর
ذَٰلِكَ
এর
أَمْرًا
(কোন) অবস্থা

হে নবী! তোমরা যখন স্ত্রীদেরকে তালাক দিতে চাও তখন তাদেরকে তালাক দাও তাদের ‘ইদ্দাতের প্রতি লক্ষ্য রেখে, আর ‘ইদ্দাতের হিসাব সঠিকভাবে গণনা করবে, (তালাক দেয়া ও ‘ইদ্দাত পালন সংক্রান্ত শারী‘আতের বিধি-বিধান পালনে) তোমরা তোমাদের প্রতিপালক আল্লাহকে ভয় কর। তাদেরকে তাদের বাসগৃহ থেকে বের করে দিও না, আর তারা নিজেরাও যেন বের হয়ে না যায়, যদি না তারা স্পষ্ট অশ্লীলতায় লিপ্ত হয়। এগুলো আল্লাহর সীমারেখা। যে কেউ আল্লাহর সীমারেখা লঙ্ঘন করে, সে নিজের উপরই যুলম করে। তোমরা জান না, আল্লাহ হয়তো এরপরও (স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সমঝোতার) কোন উপায় বের করে দিবেন।

ব্যাখ্যা
فَإِذَا
যখন অতঃপর
بَلَغْنَ
তারা পৌঁছে
أَجَلَهُنَّ
তাদের সময়কালে
فَأَمْسِكُوهُنَّ
তাদের রাখতে তখন তোমরা
بِمَعْرُوفٍ
যথাবিধি
أَوْ
বা
فَارِقُوهُنَّ
তাদের তোমরা পৃথক করবে
بِمَعْرُوفٍ
যথাবিধি
وَأَشْهِدُوا۟
ও তোমরা সাক্ষী রাখ
ذَوَىْ
আছে
عَدْلٍ
ন্যায়পরায়ণ দু'জন
مِّنكُمْ
তোমাদের মধ্য থেকে
وَأَقِيمُوا۟
ও তোমরা সঠিক দিও
ٱلشَّهَٰدَةَ
সাক্ষী
لِلَّهِۚ
আল্লাহর জন্যে
ذَٰلِكُمْ
এসব
يُوعَظُ
নসিহত করা হচ্ছে
بِهِۦ
এ দিয়ে
مَن
যে
كَانَ
ছিল
يُؤْمِنُ
বিশ্বাস করে
بِٱللَّهِ
আল্লাহর উপর
وَٱلْيَوْمِ
ও দিনের
ٱلْءَاخِرِۚ
শেষ
وَمَن
এবং যে
يَتَّقِ
ভয় করে
ٱللَّهَ
আল্লাহকে
يَجْعَل
তিনি করে দেন
لَّهُۥ
তার জন্যে
مَخْرَجًا
নিস্কৃতির পথ

অতঃপর যখন তাদের (‘ইদ্দাতের) সময়কাল এসে যায়, তখন তাদেরকে ভালভাবে (স্ত্রী হিসেবে) রেখে দাও, অথবা ভালভাবে তাদেরকে বিচ্ছিন্ন করে দাও। আর তোমাদের মধ্যেকার দু’জন ন্যায়পরায়ণ লোককে সাক্ষী রাখ। তোমরা আল্লাহর জন্য সঠিকভাবে সাক্ষ্য দাও। এর দ্বারা তোমাদেরকে উপদেশ দেয়া হচ্ছে যারা আল্লাহ ও আখিরাত দিবসের প্রতি ঈমান রাখে। যে কেউ আল্লাহকে ভয় করে, আল্লাহ তার জন্য (সমস্যা থেকে উদ্ধার পাওয়ার) কোন না কোন পথ বের করে দিবেন।

ব্যাখ্যা
وَيَرْزُقْهُ
ও তাকে রিজিক দেন
مِنْ
থেকে
حَيْثُ
যেখান
لَا
না
يَحْتَسِبُۚ
সে ধারণাও করে
وَمَن
এবং যে
يَتَوَكَّلْ
ভরসা করে
عَلَى
উপর
ٱللَّهِ
আল্লাহর
فَهُوَ
সে অতঃপর
حَسْبُهُۥٓۚ
তার জন্যে যথেষ্ট
إِنَّ
নিশ্চয়
ٱللَّهَ
আল্লাহ
بَٰلِغُ
অর্জনকারী
أَمْرِهِۦۚ
তার কাজ
قَدْ
নিশ্চয়
جَعَلَ
বানিয়েছেন
ٱللَّهُ
আল্লাহ
لِكُلِّ
সব জন্যে
شَىْءٍ
কিছুর
قَدْرًا
নির্দিষ্ট মাত্রা

আর তাকে রিযক দিবেন (এমন উৎস) থেকে যা সে ধারণাও করতে পারে না। যে কেউ আল্লাহর উপর ভরসা করে, তবে তার জন্য তিনিই যথেষ্ট। আল্লাহ নিজের কাজ সম্পূর্ণ করবেনই। আল্লাহ প্রতিটি জিনিসের জন্য করেছেন একটা সুনির্দিষ্ট মাত্রা।

ব্যাখ্যা
وَٱلَّٰٓـِٔى
এবং যারা
يَئِسْنَ
নিরাশ হয়েছে
مِنَ
হতে
ٱلْمَحِيضِ
হায়েয
مِن
মধ্য হতে
نِّسَآئِكُمْ
তোমাদের স্ত্রীদের
إِنِ
যদি
ٱرْتَبْتُمْ
তোমরা সন্দেহ কর
فَعِدَّتُهُنَّ
তাদের ইদ্দত তবে
ثَلَٰثَةُ
তিন
أَشْهُرٍ
মাস
وَٱلَّٰٓـِٔى
এবং (তাদের জন্যও) যাদের
لَمْ
নাই
يَحِضْنَۚ
হায়েজ হয়
وَأُو۟لَٰتُ
এবং যারা
ٱلْأَحْمَالِ
এবং গর্ভবতীদের
أَجَلُهُنَّ
তাদের সময়কাল
أَن
পর্যন্ত
يَضَعْنَ
প্রসব করা
حَمْلَهُنَّۚ
তাদের গর্ভ
وَمَن
এবং যে
يَتَّقِ
ভয় করে
ٱللَّهَ
আল্লাহকে
يَجْعَل
করেছেন
لَّهُۥ
তার জন্যে
مِنْ
মধ্য হতে
أَمْرِهِۦ
তার কাজ
يُسْرًا
সহজ

তোমাদের যে সব স্ত্রীগণ মাসিক ঋতু আসার বয়স অতিক্রম করেছে তাদের (‘ইদ্দাতের) ব্যাপারে যদি তোমাদের সন্দেহ সৃষ্টি হয়, সেক্ষেত্রে তাদের ‘ইদ্দাতকাল তিন মাস, আর যারা (অল্প বয়স্কা হওয়ার কারণে) এখনও ঋতুবতী হয়নি (এ নিয়ম) তাদের জন্যও। আর গর্ভবতী স্ত্রীদের ‘ইদ্দাতকাল তাদের সন্তান প্রসব পর্যন্ত। যে আল্লাহকে ভয় করে, আল্লাহ তার কাজ সহজ করে দেন।

ব্যাখ্যা
ذَٰلِكَ
এটা
أَمْرُ
বিধান
ٱللَّهِ
আল্লাহর
أَنزَلَهُۥٓ
তা নাযিল করেছেন
إِلَيْكُمْۚ
তোমাদের প্রতি
وَمَن
এবং যে
يَتَّقِ
ভয় করে
ٱللَّهَ
আল্লাহকে
يُكَفِّرْ
মোচন করবেন
عَنْهُ
তার থেকে
سَيِّـَٔاتِهِۦ
তার পাপসমূহ
وَيُعْظِمْ
ও মহান করবেন
لَهُۥٓ
তার জন্যে
أَجْرًا
পুরস্কার

এটা আল্লাহর হুকুম যা তিনি তোমাদের উপর অবতীর্ণ করেছেন। যে কেউ আল্লাহকে ভয় করে, আল্লাহ তার পাপ মোচন করে দিবেন, আর তার প্রতিফলকে বিশাল বিস্তৃত করে দিবেন।

ব্যাখ্যা
أَسْكِنُوهُنَّ
তাদের বাস করতে দাও
مِنْ
মধ্য হতে
حَيْثُ
যেখানে
سَكَنتُم
তোমরা বাস কর
مِّن
থেকে
وُجْدِكُمْ
তোমাদের সামর্থ
وَلَا
এবং না
تُضَآرُّوهُنَّ
তাদের তোমরা কষ্ট দিও
لِتُضَيِّقُوا۟
সঙ্কটে ফেলবার জন্যে
عَلَيْهِنَّۚ
তাদেরকে
وَإِن
এবং যদি
كُنَّ
তারা হয়
أُو۟لَٰتِ
যারা
حَمْلٍ
গর্ভবতী
فَأَنفِقُوا۟
তোমরা খরচ তবে কর
عَلَيْهِنَّ
তাদের উপর
حَتَّىٰ
যতক্ষণ না
يَضَعْنَ
প্রসব করে
حَمْلَهُنَّۚ
তাদের গর্ভ
فَإِنْ
যদি অতঃপর
أَرْضَعْنَ
তারা দুধপান করায়
لَكُمْ
তোমাদের (বাচ্চাদের)কে
فَـَٔاتُوهُنَّ
তাদের দাও তবে তোমরা
أُجُورَهُنَّۖ
তাদের পারিশ্রমিকাদি
وَأْتَمِرُوا۟
ও তোমরা পরামর্শ কর
بَيْنَكُم
তোমাদের মাঝে
بِمَعْرُوفٍۖ
সংগতভাবে
وَإِن
এবং যদি
تَعَاسَرْتُمْ
তোমরা পরস্পরে কঠোরতা কর
فَسَتُرْضِعُ
স্তন্য দিবে তবে
لَهُۥٓ
তার জন্যে্যে
أُخْرَىٰ
অন্য (নারী)

(‘ইদ্দাতকালে) নারীদেরকে সেভাবেই বসবাস করতে দাও যেভাবে তোমরা বসবাস কর তোমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী, তাদেরকে সংকটে ফেলার জন্য তাদেরকে জ্বালাতন করো না। তারা যদি গর্ভবতী হয়ে থাকে, তবে তারা সন্তান প্রসব না করা পর্যন্ত তাদের ব্যয়ভার বহন কর। অতঃপর তারা যদি তোমাদের সন্তানকে দুধ পান করায়, তবে তাদেরকে তাদের পারিশ্রমিক দাও। (দুধ পান করানোর ব্যাপারে) ন্যায়সঙ্গতভাবে নিজেদের মধ্যে পরামর্শ করে লও। আর (দুধ পান করানোর ব্যাপার নিয়ে) তোমরা যদি একে অপরের প্রতি কড়াকড়ি করতেই থাক, তাহলে (এ অবস্থা থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য) অপর কোন স্ত্রীলোক সন্তানকে দুধ পান করাবে।

ব্যাখ্যা
لِيُنفِقْ
খরচ যেন করে
ذُو
আছে
سَعَةٍ
সচ্ছল ব্যক্তি
مِّن
অনুযায়ী
سَعَتِهِۦۖ
তার সচ্ছলতা
وَمَن
এবং যার
قُدِرَ
সীমিত করা হয়েছে
عَلَيْهِ
তার উপর
رِزْقُهُۥ
তার রিযক
فَلْيُنفِقْ
সে খরচ অতঃপর করবে
مِمَّآ
যা (তা) থেকে
ءَاتَىٰهُ
তাকে দিয়েছেন
ٱللَّهُۚ
আল্লাহ
لَا
না
يُكَلِّفُ
কষ্ট দেন
ٱللَّهُ
আল্লাহ
نَفْسًا
কোন ব্যক্তিকে
إِلَّا
এছাড়া
مَآ
যা
ءَاتَىٰهَاۚ
তাকে দিয়েছেন
سَيَجْعَلُ
দিবেন শীঘ্রই
ٱللَّهُ
আল্লাহ
بَعْدَ
পর
عُسْرٍ
কষ্টের
يُسْرًا
স্বস্তি

সচ্ছল ব্যক্তি তার সচ্ছলতা অনুসারে ব্যয় করবে। আর যার রিযক সীমিত করা হয়েছে, সে ব্যয় করবে আল্লাহ তাকে যা দিয়েছেন তাত্থেকে। আল্লাহ যাকে যতটা দিয়েছেন তার অতিরিক্ত বোঝা তার উপর চাপান না। আল্লাহ কষ্টের পর আরাম দিবেন।

ব্যাখ্যা
وَكَأَيِّن
এবং কত
مِّن
থেকে
قَرْيَةٍ
জনপদ
عَتَتْ
অমান্য করেছিল
عَنْ
বিপক্ষে
أَمْرِ
নির্দেশ
رَبِّهَا
তার রবের
وَرُسُلِهِۦ
ও তাঁর রসূলদের
فَحَاسَبْنَٰهَا
তার আমরা হিসাব অতঃপর নিয়েছি
حِسَابًا
হিসাব
شَدِيدًا
কঠোর
وَعَذَّبْنَٰهَا
ও তার আমরা শাস্তি দিয়েছি
عَذَابًا
শাস্তি
نُّكْرًا
ভীষণ

কত জনপদ তাদের প্রতিপালকের আর তাঁর রসূলদের হুকুম অমান্য করেছে। ফলে আমরা তাদের থেকে কঠিনভাবে প্রতিশোধ নিয়েছি আর তাদেরকে ‘আযাব দিয়েছি কঠিন ‘আযাব।

ব্যাখ্যা
فَذَاقَتْ
স্বাদ নিয়েছে অতঃপর
وَبَالَ
কুফলের
أَمْرِهَا
তার কাজের
وَكَانَ
এবং হল
عَٰقِبَةُ
পরিণাম
أَمْرِهَا
তার কাজের
خُسْرًا
ক্ষতি

তারা তাদের কৃতকর্মের খারাপ প্রতিফল আস্বাদন করল, ধ্বংসই হল তাদের কাজের পরিণতি।

ব্যাখ্যা
أَعَدَّ
প্রস্তুত রেখেছেন
ٱللَّهُ
আল্লাহ
لَهُمْ
তাদের জন্যে
عَذَابًا
আযাব
شَدِيدًاۖ
কঠিন
فَٱتَّقُوا۟
অতএব তোমরা ভয় কর
ٱللَّهَ
আল্লাহকে
يَٰٓأُو۟لِى
হে
ٱلْأَلْبَٰبِ
বোধসম্পন্নরা
ٱلَّذِينَ
যারা
ءَامَنُوا۟ۚ
ঈমান এনেছে
قَدْ
নিশ্চয়
أَنزَلَ
অবতীর্ণ করেছেন
ٱللَّهُ
আল্লাহ
إِلَيْكُمْ
তোমাদের প্রতি
ذِكْرًا
উপদেশ

আল্লাহ তাদের জন্য কঠিন শাস্তি প্রস্তুত করে রেখেছেন। অতএব হে জ্ঞানবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষেরা! যারা ঈমান এনেছ তোমরা আল্লাহকে ভয় কর। আল্লাহ তোমাদের প্রতি অবতীর্ণ করেছেন উপদেশ।

ব্যাখ্যা
সম্পর্কে তথ্য :
আত্ব-ত্বালাক্ব
القرآن الكريم:الطلاق
আধিপত্য একটি আয়াত (سجدة):-
সূরা নাম (latin):At-Talaq
সূরা না:65
মোট আয়াত:12
মোট শব্দ:249
মোট অক্ষর:1060
রুকু সংখ্যা:2
উদ্ঘাটন অবস্থান:মদিনা
উদ্ঘাটন আদেশ:99
শ্লোক থেকে শুরু:5217